ঢাকা , শনিবার, ২২ জুন ২০২৪

আজও কি হারের লজ্জা পাবে টাইগাররা?

Oplus_131072

যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে সিরিজ খেলে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি নিয়ে অনেকেই হাসিঠাট্টা করেছিলেন। লিটন-শান্তরদের প্রতি সমর্থকদের বিশ্বাস না থাকলেও প্রবাসীদের নিয়ে গড়া যুক্তরাষ্ট্রের কাছে বাংলাদেশ হারতে পারে এমনটা ভাবেনি কেউই। অথচ প্রথম মুখোমুখিতে ৫ উইকেটে দাপুটে জয়ে স্বাগতিকরা সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে। আজ তাদের সামনে সিরিজ জয়ের হাতছানি।

 

হিউস্টনের একই মাঠে আজ বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র। এ ম্যাচে হারলে টি২০ সিরিজ জিতে নিবে যুক্তরাষ্ট্র। ক্রিকেট প্রেমিদের মনে প্রশ্ন জাগে আজও কি লজ্জা পাবে টাইগাররা।

 

 

যাদের ছোট দল ভাবা হয় তাদের বিপক্ষে হারা বাংলাদেশের জন্য এই প্রথম নয়। এর আগে নেদারল্যান্ডস, কানাডা, হংকং কিংবা স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে যে হারের অভিজ্ঞতা রয়েছে। তবে সময়ের ব্যবধানে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে প্রথম আন্তর্জাতিক মুখোমুখিতেই যে বাংলাদেশ হারবে এমনটা কেউই ভাবেনি।

 

বাংলাদেশের দুর্বলতা চারদিকে ব্যাটিংয়ে তো আছেই, যে বোলিং নিয়ে গর্ব করা হয় সেখানেও প্রয়োজনীয় সময় জ্বলে উঠতে পারে না টাইগাররা। যাকে নিয়ে সবচেয়ে বেশি আত্মবিশ্বাস সেই মুস্তÍাফিজুর রহমানই শেষের দুই ওভারে ৩২ রান দিয়ে দলকে ছিটকে দেন। এ ছাড়া নতুন অধিনায়ক নাজমুলকে নিয়ে যতোই প্রসংশায় পঞ্চমুখ হোক না কেন যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে তার দুর্বলতা বেরিয়ে গেছে। পাওয়ার প্লের প্রথম ছয় ওভার শেষ করতে মঙ্গলবার পাঁচ বোলার লাগিয়েছিলেন। আবার রিশাদ হোসেন প্রথম উইকেট এনে দিয়ে চারটি ডট বল দিয়েছেন। কিন্তু পরের ওভারের তাকে আর আনেননি অধিনায়ক। বোলার দ্রুত পাল্টানোর সুযোগও নিয়েছে স্বাগতিক ব্যাটাররা। প্রথম ম্যাচে ১৬ ওভার শেষে পাঁচ উইকেট হারিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের রান ছিল ৯৯। এরপরও ১৫৪ রান তাড়ায় দলটি তিন বল হাতে রেখেই পাঁচ উইকেটে জেতে।

 

 

ঐতিহাসিক জয়ের পরও নিজেদের উন্নতি নিয়ে ভাবছে স্বাগতিকরা। প্রথম ম্যাচে জয়ের পর অধিনায়ক মোনাক প্যাটেল বলেন, ‘আমাদের বোলার দারুন বোলিং করেছে। ব্যাটসম্যানরা ভালো শুরুর পর মধ্যভাগে দ্রুত কিছু উইকেট হারিয়ে ফেলি। পরের ম্যাচে এখানে উন্নতি করার চেষ্টা করব। এই ম্যাচে যে ভুলগুলো হয়েছে তার যেন পুনরাবৃত্তি না হয়।’

 

 

হতাশাজনক হারের পর সিরিজে ফিরার আশা করছেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তও। এমন হারের পরও অবশ্য খুব বেশি হতাশা নেই তার। বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘আমরা ভালো খেলিনি তাই হেরেছি। সবাই চেষ্টা করছে কিন্তু এইদিনটা ভালো ছিল না। সামনের ম্যাচে ভালো করার চেষ্টা করবে। আশা করি জয়ে ফিরবো।’

 

 

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের গ্রুপে রয়েছে নেদারল্যান্ডস, নেপাল, শ্রীলংকা ও দক্ষিণ আফ্রিকা। যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে হারের পর গ্রুপটা এখন বেশি শক্তিশালী মনে হচ্ছে। তবে তার আগে মার্কিন মুলুকে আরও চারটি ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবে টাইগাররা। সিরিজের দুটিসহ আইসিসি প্রস্তুতি ম্যাচের অংক হিসাবে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে তিনটি ও ভারতের বিপক্ষে একটি ম্যাচ খেলবে টাইগাররা। তবে বিশ্বকাপের আগে যুক্তরাষ্ট্রকে সামলানোই এখন বাংলাদেশের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্য ইমেইল

আজও কি হারের লজ্জা পাবে টাইগাররা?

প্রকাশিত : ১১:১৭:১২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪

যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে সিরিজ খেলে বিশ্বকাপের প্রস্তুতি নিয়ে অনেকেই হাসিঠাট্টা করেছিলেন। লিটন-শান্তরদের প্রতি সমর্থকদের বিশ্বাস না থাকলেও প্রবাসীদের নিয়ে গড়া যুক্তরাষ্ট্রের কাছে বাংলাদেশ হারতে পারে এমনটা ভাবেনি কেউই। অথচ প্রথম মুখোমুখিতে ৫ উইকেটে দাপুটে জয়ে স্বাগতিকরা সিরিজে ১-০ তে এগিয়ে। আজ তাদের সামনে সিরিজ জয়ের হাতছানি।

 

হিউস্টনের একই মাঠে আজ বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র। এ ম্যাচে হারলে টি২০ সিরিজ জিতে নিবে যুক্তরাষ্ট্র। ক্রিকেট প্রেমিদের মনে প্রশ্ন জাগে আজও কি লজ্জা পাবে টাইগাররা।

 

 

যাদের ছোট দল ভাবা হয় তাদের বিপক্ষে হারা বাংলাদেশের জন্য এই প্রথম নয়। এর আগে নেদারল্যান্ডস, কানাডা, হংকং কিংবা স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে যে হারের অভিজ্ঞতা রয়েছে। তবে সময়ের ব্যবধানে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে প্রথম আন্তর্জাতিক মুখোমুখিতেই যে বাংলাদেশ হারবে এমনটা কেউই ভাবেনি।

 

বাংলাদেশের দুর্বলতা চারদিকে ব্যাটিংয়ে তো আছেই, যে বোলিং নিয়ে গর্ব করা হয় সেখানেও প্রয়োজনীয় সময় জ্বলে উঠতে পারে না টাইগাররা। যাকে নিয়ে সবচেয়ে বেশি আত্মবিশ্বাস সেই মুস্তÍাফিজুর রহমানই শেষের দুই ওভারে ৩২ রান দিয়ে দলকে ছিটকে দেন। এ ছাড়া নতুন অধিনায়ক নাজমুলকে নিয়ে যতোই প্রসংশায় পঞ্চমুখ হোক না কেন যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে তার দুর্বলতা বেরিয়ে গেছে। পাওয়ার প্লের প্রথম ছয় ওভার শেষ করতে মঙ্গলবার পাঁচ বোলার লাগিয়েছিলেন। আবার রিশাদ হোসেন প্রথম উইকেট এনে দিয়ে চারটি ডট বল দিয়েছেন। কিন্তু পরের ওভারের তাকে আর আনেননি অধিনায়ক। বোলার দ্রুত পাল্টানোর সুযোগও নিয়েছে স্বাগতিক ব্যাটাররা। প্রথম ম্যাচে ১৬ ওভার শেষে পাঁচ উইকেট হারিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের রান ছিল ৯৯। এরপরও ১৫৪ রান তাড়ায় দলটি তিন বল হাতে রেখেই পাঁচ উইকেটে জেতে।

 

 

ঐতিহাসিক জয়ের পরও নিজেদের উন্নতি নিয়ে ভাবছে স্বাগতিকরা। প্রথম ম্যাচে জয়ের পর অধিনায়ক মোনাক প্যাটেল বলেন, ‘আমাদের বোলার দারুন বোলিং করেছে। ব্যাটসম্যানরা ভালো শুরুর পর মধ্যভাগে দ্রুত কিছু উইকেট হারিয়ে ফেলি। পরের ম্যাচে এখানে উন্নতি করার চেষ্টা করব। এই ম্যাচে যে ভুলগুলো হয়েছে তার যেন পুনরাবৃত্তি না হয়।’

 

 

হতাশাজনক হারের পর সিরিজে ফিরার আশা করছেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তও। এমন হারের পরও অবশ্য খুব বেশি হতাশা নেই তার। বাংলাদেশ অধিনায়ক বলেন, ‘আমরা ভালো খেলিনি তাই হেরেছি। সবাই চেষ্টা করছে কিন্তু এইদিনটা ভালো ছিল না। সামনের ম্যাচে ভালো করার চেষ্টা করবে। আশা করি জয়ে ফিরবো।’

 

 

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের গ্রুপে রয়েছে নেদারল্যান্ডস, নেপাল, শ্রীলংকা ও দক্ষিণ আফ্রিকা। যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে হারের পর গ্রুপটা এখন বেশি শক্তিশালী মনে হচ্ছে। তবে তার আগে মার্কিন মুলুকে আরও চারটি ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবে টাইগাররা। সিরিজের দুটিসহ আইসিসি প্রস্তুতি ম্যাচের অংক হিসাবে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে তিনটি ও ভারতের বিপক্ষে একটি ম্যাচ খেলবে টাইগাররা। তবে বিশ্বকাপের আগে যুক্তরাষ্ট্রকে সামলানোই এখন বাংলাদেশের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।