ঢাকা , সোমবার, ২০ মে ২০২৪
বিশ্বকাপ ভিন্ন জায়গা বলেও মনে করিয়ে দিয়েছেন সাকিব

জিম্বাবুয়ে-যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে খেলে বিশ্বকাপের চিন্তা করা ভুল: সাকিব

Oplus_131072

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ শুরুর আগে নাজমুল হোসেন শান্ত জানিয়েছিলেন, সিরিজ জয়ের পাশাপাশি আমরা কিভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছি, কিভাবে আত্মবিশ্বাস গড়ে তুলছি এগুলো গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশ অধিনায়কের চোখ প্রস্তুতিতে হলেও সাকিব আল হাসান মনে করেন, জিম্বাবুয়ে কিংবা যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে খেলে বিশ্বকাপের চিন্তা করা ভুল ধারণা। বিশ্বকাপ ভিন্ন জায়গা বলেও মনে করিয়ে দিয়েছেন সাকিব।

 

 

 

 

 

জুনে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং যুক্তরাষ্ট্রে বিশ্বকাপ খেলতে যাওয়ার আগে ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলছে বাংলাদেশ। যেখানে প্রথম ম্যাচেই তাসকিন আহমেদ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের বোলিংয়ের পাশাপাশি তানজিদ হাসান তামিমের ব্যাটে জিম্বাবুয়েকে উড়িয়ে দিয়েছে স্বাগতিকরা। সিরিজে বাকি রয়েছে আরও চার ম্যাচ। যদিও বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ম্যাচ রয়েছে সাতটি।

 

জিম্বাবুয়ের সঙ্গে চারটির সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে গিয়ে খেলবে তিনটি। বিশ্বকাপের মতো মঞ্চে খেলতে যাওয়ার আগে বাছাই পর্ব পেরোতে না পারা জিম্বাবুয়ে ও শক্তিমত্তায় পিছিয়ে থাকা যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে খেলে প্রস্তুতি নেয়া হিতে বিপরীত হতে পারে বলে ধারণা বিশেষজ্ঞদের। সাকিবও কথা বলেছেন প্রায় একই সুরে। বাংলাদেশের তারকা অলরাউন্ডারের কাছে এই দুই দলের সঙ্গে খেলে বিশ্বকাপে ভালো করার চিন্তা করাকে ভুল ধারণা হিসেবে তুলে ধরেছেন।

 

 

 

 

 

গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে সাকিব বলেন, ‘দেখুন, জিম্বাবুয়ে ও যুক্তরাষ্ট্রের সাথে খেলা বিবেচনা করে যদি আমি বিশ্বকাপ চিন্তা করি আমার কাছে মনে হয় খুবই ভুল ধারণা হবে। বিশ্বকাপ ভিন্ন জায়গা আমরা যত বেশি চাপ সামলাতে পারব তত ভালো করার সম্ভাবনা আছে। সবশেষ যখন আমরা বিশ্বকাপ খেলেছি মনে হয় মোটামুটি পারফরম্যান্স করেছি।’

 

‘সেটা খুব ভালো না হলেও কেউ বলবে না যে খুব একটা খারাপ। আমি আশা করব ওই জায়গাটা যে বেঞ্চ মার্ক হয় এই টুর্নামেন্টটা হবে আমাদের সেটাকে ছাড়িয়ে যাওয়ার। সেটা যদি যেতে হয় প্রথম রাউন্ডে তিনটা ম্যাচ জিততে হবে। সেটা যদি আমরা করতে পারি তাহলে মোটামুটি ভালো একটা … হবে। তারপর যদি পরবর্তী চিন্তা করি আমার মনে হয় ভালো।

 

 

 

 

 

সবশেষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলতে যাওয়ার আগে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলেছিল বাংলাদেশ। যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ ছিল তারকাবহুল নিউজিল্যান্ড ও পাকিস্তান। সাকিব জানিয়েছেন এমন কঠিন প্রতিপক্ষের সঙ্গে খেলায় প্রস্তুতিটা ভালো ছিল। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে খেলাকে আদর্শ মনে না করলেও বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক জানান, কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার কথা বিবেচনা করেই এমন উদ্যোগ নিয়েছে বিসিবি।

 

 

 

 

 

সাকিব বলেন, ‘খুব সম্ভবত যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে খেলার একটা বড় কারণ হচ্ছে কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেয়া। একই সঙ্গে ওই জায়গাটা সম্পর্কে জানা। খুব বেশি খেলোয়াড় নাই যে যুক্তরাষ্ট্রে খেলেছে। ফ্লোরিডাতে হয়ত আমরা কয়েকজন খেলোয়াড় যাদের খেলার অভিজ্ঞতা আছে। ওইটা কাজে লাগবে যে আমরা কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারব। আমি যেটা বললাম অবশ্যই এটা আদর্শ না।’

 

আপনি যখন একটা কঠিন প্রতিপক্ষের সঙ্গে খেলে যাবেন আপনি যেটা বললেন নিউজিল্যান্ড ও পাকিস্তানের মতো দলের সঙ্গে নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে খেলে যখন বিশ্বকাপে খেলতে গিয়েছি। স্বাভাবিকভাবেই ভালো একটা প্রস্তুতি নিয়ে যেতে পেরেছি। অবশ্যই এটা আদর্শ না। খুব সম্ভবত এটাই আমাদের সেরা অবস্থান ছিল প্রস্তুতি নেয়ার জন্য।’

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্য ইমেইল

বিশ্বকাপ ভিন্ন জায়গা বলেও মনে করিয়ে দিয়েছেন সাকিব

জিম্বাবুয়ে-যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে খেলে বিশ্বকাপের চিন্তা করা ভুল: সাকিব

প্রকাশিত : ১০:৫২:৪৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ৪ মে ২০২৪

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ শুরুর আগে নাজমুল হোসেন শান্ত জানিয়েছিলেন, সিরিজ জয়ের পাশাপাশি আমরা কিভাবে প্রস্তুতি নিচ্ছি, কিভাবে আত্মবিশ্বাস গড়ে তুলছি এগুলো গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশ অধিনায়কের চোখ প্রস্তুতিতে হলেও সাকিব আল হাসান মনে করেন, জিম্বাবুয়ে কিংবা যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে খেলে বিশ্বকাপের চিন্তা করা ভুল ধারণা। বিশ্বকাপ ভিন্ন জায়গা বলেও মনে করিয়ে দিয়েছেন সাকিব।

 

 

 

 

 

জুনে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং যুক্তরাষ্ট্রে বিশ্বকাপ খেলতে যাওয়ার আগে ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলছে বাংলাদেশ। যেখানে প্রথম ম্যাচেই তাসকিন আহমেদ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের বোলিংয়ের পাশাপাশি তানজিদ হাসান তামিমের ব্যাটে জিম্বাবুয়েকে উড়িয়ে দিয়েছে স্বাগতিকরা। সিরিজে বাকি রয়েছে আরও চার ম্যাচ। যদিও বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ম্যাচ রয়েছে সাতটি।

 

জিম্বাবুয়ের সঙ্গে চারটির সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে গিয়ে খেলবে তিনটি। বিশ্বকাপের মতো মঞ্চে খেলতে যাওয়ার আগে বাছাই পর্ব পেরোতে না পারা জিম্বাবুয়ে ও শক্তিমত্তায় পিছিয়ে থাকা যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে খেলে প্রস্তুতি নেয়া হিতে বিপরীত হতে পারে বলে ধারণা বিশেষজ্ঞদের। সাকিবও কথা বলেছেন প্রায় একই সুরে। বাংলাদেশের তারকা অলরাউন্ডারের কাছে এই দুই দলের সঙ্গে খেলে বিশ্বকাপে ভালো করার চিন্তা করাকে ভুল ধারণা হিসেবে তুলে ধরেছেন।

 

 

 

 

 

গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে সাকিব বলেন, ‘দেখুন, জিম্বাবুয়ে ও যুক্তরাষ্ট্রের সাথে খেলা বিবেচনা করে যদি আমি বিশ্বকাপ চিন্তা করি আমার কাছে মনে হয় খুবই ভুল ধারণা হবে। বিশ্বকাপ ভিন্ন জায়গা আমরা যত বেশি চাপ সামলাতে পারব তত ভালো করার সম্ভাবনা আছে। সবশেষ যখন আমরা বিশ্বকাপ খেলেছি মনে হয় মোটামুটি পারফরম্যান্স করেছি।’

 

‘সেটা খুব ভালো না হলেও কেউ বলবে না যে খুব একটা খারাপ। আমি আশা করব ওই জায়গাটা যে বেঞ্চ মার্ক হয় এই টুর্নামেন্টটা হবে আমাদের সেটাকে ছাড়িয়ে যাওয়ার। সেটা যদি যেতে হয় প্রথম রাউন্ডে তিনটা ম্যাচ জিততে হবে। সেটা যদি আমরা করতে পারি তাহলে মোটামুটি ভালো একটা … হবে। তারপর যদি পরবর্তী চিন্তা করি আমার মনে হয় ভালো।

 

 

 

 

 

সবশেষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলতে যাওয়ার আগে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলেছিল বাংলাদেশ। যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ ছিল তারকাবহুল নিউজিল্যান্ড ও পাকিস্তান। সাকিব জানিয়েছেন এমন কঠিন প্রতিপক্ষের সঙ্গে খেলায় প্রস্তুতিটা ভালো ছিল। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে খেলাকে আদর্শ মনে না করলেও বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক জানান, কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার কথা বিবেচনা করেই এমন উদ্যোগ নিয়েছে বিসিবি।

 

 

 

 

 

সাকিব বলেন, ‘খুব সম্ভবত যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে খেলার একটা বড় কারণ হচ্ছে কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেয়া। একই সঙ্গে ওই জায়গাটা সম্পর্কে জানা। খুব বেশি খেলোয়াড় নাই যে যুক্তরাষ্ট্রে খেলেছে। ফ্লোরিডাতে হয়ত আমরা কয়েকজন খেলোয়াড় যাদের খেলার অভিজ্ঞতা আছে। ওইটা কাজে লাগবে যে আমরা কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারব। আমি যেটা বললাম অবশ্যই এটা আদর্শ না।’

 

আপনি যখন একটা কঠিন প্রতিপক্ষের সঙ্গে খেলে যাবেন আপনি যেটা বললেন নিউজিল্যান্ড ও পাকিস্তানের মতো দলের সঙ্গে নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে খেলে যখন বিশ্বকাপে খেলতে গিয়েছি। স্বাভাবিকভাবেই ভালো একটা প্রস্তুতি নিয়ে যেতে পেরেছি। অবশ্যই এটা আদর্শ না। খুব সম্ভবত এটাই আমাদের সেরা অবস্থান ছিল প্রস্তুতি নেয়ার জন্য।’