ঢাকা , শনিবার, ২২ জুন ২০২৪

মোদির শপথ অনুষ্ঠানে থাকবেন যেসব দেশের রাষ্ট্রনায়ক

টানা তৃতীয়বারের মতো ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন নরেন্দ্র মোদি। রোববার (০৯ জুন) সন্ধ্যায় তার শপথ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। এ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ আরও অন্তত সাতজন সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধান উপস্থিত থাকবেন।

 

শনিবার (০৮ জুন) ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

 

 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রোববার সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু নরেন্দ্র মোদিকে শপথ পাঠ করাবেন। অনুষ্ঠানটিকে স্বরণীয় করে রাখতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রনায়কদেরও।

 

 

আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট রনিল বিক্রমাসিংহে, নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্পকমল দহল ওরফে প্রচণ্ড। এমনকি সম্পর্কের টানপড়েন চলা দেশ মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট মহম্মদ মুইজ্জুকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

 

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাতে জানিয়েছে, ভুটানের রাজা জিগমে খেসার নামগয়াল ওয়াংচুক, মরিশাসের প্রধানমন্ত্রী প্রবীন্দ জুগনথ এবং পূর্ব আফ্রিকার দেশ সেশেলসের ভাইস প্রেসিডেন্ট আহমদে আফিফকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

 

 

সূত্র জানিয়েছে, রাষ্ট্রীয় এসব অতিথির জন্য তাজ প্যালেস, দ্য ওবেরয়, দ্য লীলা প্যালেস এবং আইটিসি মৌর্যের মতো পাঁচ তারকা সব হোটেল বরাদ্দ করা হয়েছে। তবে নিরাপত্তার কারণে যেকোনো সময় বদল করা হতে পারে অতিথিদের ঠিকানা। প্রধানমন্ত্রীর শপথ অনুষ্ঠানে আট হাজারের বেশি অতিথি থাকবেন।

 

 

২০১৯ সালে শপথ অনুষ্ঠানে বিমসটেক গোষ্ঠীর সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্রপ্রধানদের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন মোদি। আমন্ত্রিত ছিলেন বাংলাদেশ, ভুটান, মায়ানমার, নেপাল, শ্রীলঙ্কা এবং থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রপ্রধান। দশ বছর আগে ক্ষমতায় আসার পরেই প্রথম শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে সার্ক সদস্য দেশগুলোকে আমন্ত্রণ জানান মোদি। সেবারের শপথ অনুষ্ঠানে হাজির হয়েছিলেন পাকিস্তানের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফও।

 

২০১৯ সালে মোদির সঙ্গে শপথ নেন ২৪ জন পূর্ণমন্ত্রী এবং ৯ জন প্রতিমন্ত্রী। তবে এবার নির্বাচনে বিজেপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। ফলে মোদির মন্ত্রিসভায় এ বার গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে দেখা যেতে পারে টিডিপি এবং জেডিইউ-এর মতো দলগুলোকে।

 

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্য ইমেইল

মোদির শপথ অনুষ্ঠানে থাকবেন যেসব দেশের রাষ্ট্রনায়ক

প্রকাশিত : ০২:০৪:৫৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৯ জুন ২০২৪

টানা তৃতীয়বারের মতো ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন নরেন্দ্র মোদি। রোববার (০৯ জুন) সন্ধ্যায় তার শপথ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। এ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ আরও অন্তত সাতজন সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধান উপস্থিত থাকবেন।

 

শনিবার (০৮ জুন) ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

 

 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রোববার সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু নরেন্দ্র মোদিকে শপথ পাঠ করাবেন। অনুষ্ঠানটিকে স্বরণীয় করে রাখতে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রনায়কদেরও।

 

 

আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে রয়েছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট রনিল বিক্রমাসিংহে, নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্পকমল দহল ওরফে প্রচণ্ড। এমনকি সম্পর্কের টানপড়েন চলা দেশ মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট মহম্মদ মুইজ্জুকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

 

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাতে জানিয়েছে, ভুটানের রাজা জিগমে খেসার নামগয়াল ওয়াংচুক, মরিশাসের প্রধানমন্ত্রী প্রবীন্দ জুগনথ এবং পূর্ব আফ্রিকার দেশ সেশেলসের ভাইস প্রেসিডেন্ট আহমদে আফিফকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

 

 

সূত্র জানিয়েছে, রাষ্ট্রীয় এসব অতিথির জন্য তাজ প্যালেস, দ্য ওবেরয়, দ্য লীলা প্যালেস এবং আইটিসি মৌর্যের মতো পাঁচ তারকা সব হোটেল বরাদ্দ করা হয়েছে। তবে নিরাপত্তার কারণে যেকোনো সময় বদল করা হতে পারে অতিথিদের ঠিকানা। প্রধানমন্ত্রীর শপথ অনুষ্ঠানে আট হাজারের বেশি অতিথি থাকবেন।

 

 

২০১৯ সালে শপথ অনুষ্ঠানে বিমসটেক গোষ্ঠীর সদস্য দেশগুলোর রাষ্ট্রপ্রধানদের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন মোদি। আমন্ত্রিত ছিলেন বাংলাদেশ, ভুটান, মায়ানমার, নেপাল, শ্রীলঙ্কা এবং থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রপ্রধান। দশ বছর আগে ক্ষমতায় আসার পরেই প্রথম শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে সার্ক সদস্য দেশগুলোকে আমন্ত্রণ জানান মোদি। সেবারের শপথ অনুষ্ঠানে হাজির হয়েছিলেন পাকিস্তানের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফও।

 

২০১৯ সালে মোদির সঙ্গে শপথ নেন ২৪ জন পূর্ণমন্ত্রী এবং ৯ জন প্রতিমন্ত্রী। তবে এবার নির্বাচনে বিজেপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। ফলে মোদির মন্ত্রিসভায় এ বার গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে দেখা যেতে পারে টিডিপি এবং জেডিইউ-এর মতো দলগুলোকে।