ঢাকা , সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪

বাঁশখালীতে ইপসার সেভ দ্য চিলড্রেন সভা

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে সাধনপুর, পুকুরিয়া, কালীপুর ও বৈলছড়ি ইউনিয়নে পাহাড়ধসে সৃষ্ট ক্ষতির প্রভাব কমিয়ে আনতে জিএফএফও সেভ দ্য চিলড্রেন ও ইপসা প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে ভাবে কাজ করবে। উপজেলা/ ইউনিয়ন পর্যায়ে স্থানীয় প্রশাসন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি, ভলান্টিয়ার, চাইল্ড এন্ড ইয়ূথ গ্রুপ, আবহাওয়াবিদ, রিসোর্স পুল সহ বিভিন্ন গ্রুপ কে Early warning system সহ নানাবিধ প্রশিক্ষণ প্রদান, কমিউনিটি পর্যায়ে ভয়েস ম্যাসেজ প্রদান, সচেতনতামূলক সভা, ক্যাম্পেইন, শর্তবিহীন ও শর্তযুক্ত নগদ অর্থ প্রদান, রেইন গেজ, সয়েল ময়েস্চোর সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ডিভাইস প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে টেকনিক্যাল সাপোর্ট প্রদান করা হবে। 

বৃহস্প‌তিবার (২৭ জুন) সকা‌ল ১১টায় বাঁশখালী উপজেলা অফিসার্স ক্লাবে আয়োজিত উল্লেখিত প্রকল্পের অবহিতকরণ সভায় বিষয়টি নিশ্চিত করা হয় এবং প্রকল্প বাস্তবায়নের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য সম্পর্কে ধারণা প্রদান এবং কার্যকর প্রন্থা অবলম্বনে স্টেকহোল্ডার/অংশীজনদের মতামত গ্রহণ করা হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন আক্তার। সভায় অংশ নেন উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি আবদুল খালেক পাটোয়ারী, উপজেলা কৃষি অফিসার আবু সালেক, উপ‌জেলা সি‌নিয়র মৎস‌্য কর্মকর্তা মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, উপ‌জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ড. সুপন কুমার নন্দী, সাধনপুর ইউপি চেয়ারম্যান কে এম সালাহ উদ্দিন কামাল, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যাল‌য়ের প্রকৌশলী লিপটন ওম, সিপিপির কর্মকর্তা মিটু কুমার দাশ, সহকারী যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মামুনুর রশীদ, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের প্রতি‌নি‌ধি, কালীপুর রেঞ্জ অফিসার আল আমিন হক প্রমূখ।

উন্নয়ন ও সংবাদকর্মী কল্যাণ বড়ুয়ার সঞ্চালনায়, সভার শুরু‌তে শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন ইপসা র প্রজেক্ট ম্যানেজার সানজিদা আক্তার। এতে প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন সেভ দ্য চিলড্রেন অফিসার আবু তৈয়ব।

এ সময় সভায় প্রধান অতিথি উপজেলা নির্বাহী অ‌ফিসার জেসমিন আক্তার বলেন, ‘বাঁশখালী উপজেলা ঘূর্ণিঝড় ও পাহাড়ধসের জন্য অত্যন্ত দুর্যোগপূর্ণ এলাকা হিসেবে পরিচিত, উপজেলার কয়েক হাজার মানুষ পাহাড়ি এলাকায় ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে বসবাস করছে, স্থানীয় জনগোষ্ঠীসহ নিম্ম আয়ের কিছু মানুষকে প্রশাসন বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা করেও ঝুঁকিপূর্ণ মানুষকে পুরোপুরি সরিয়ে আনতে সক্ষম হচ্ছেনা, পাহাড়কাটা রোধে প্রশাসন সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। অতিবৃষ্টির প্রেক্ষিতে যেকোনো সময় পাহাড়ধসে বড় ধরণের বিপযর্যের সম্ভাবনা তুলে ধরে তিনি প্রশাসনের পাশাপাশি বেসসরকারি প্রতিষ্ঠান গুলোর কার্যকর প্রদক্ষেপ এবং স্থানীয় জনগোষ্ঠীর সচেতনতার উপর গুরুত্বারোপ করেন।

এ সময় তিনি বিগত দিনে ইপসা কর্তৃক গৃহহীনদের ভূমি ও গৃহ নির্মাণ, সেলাই মেশিন, গবাদি পশু বিতরণ সহ বিভিন্ন কার্যক্রমের ভূয়সী প্রশংসা করে ইপসা, সেভ দ্য এবং জিএফএফও বাস্তবায়িত চাইল্ড সেন্টারড এন্টিসিপেটরি একশন ‘র প্রকল্পের কার্যক্রম পাহাড়ি অঞ্চলের ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর সচেতনতায় অত্যন্ত কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ করেন এবং প্রকল্প বাস্তবায়নে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।’

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্য ইমেইল

বাঁশখালীতে ইপসার সেভ দ্য চিলড্রেন সভা

প্রকাশিত : ০৩:০৭:১৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ জুন ২০২৪

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে সাধনপুর, পুকুরিয়া, কালীপুর ও বৈলছড়ি ইউনিয়নে পাহাড়ধসে সৃষ্ট ক্ষতির প্রভাব কমিয়ে আনতে জিএফএফও সেভ দ্য চিলড্রেন ও ইপসা প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে ভাবে কাজ করবে। উপজেলা/ ইউনিয়ন পর্যায়ে স্থানীয় প্রশাসন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি, ভলান্টিয়ার, চাইল্ড এন্ড ইয়ূথ গ্রুপ, আবহাওয়াবিদ, রিসোর্স পুল সহ বিভিন্ন গ্রুপ কে Early warning system সহ নানাবিধ প্রশিক্ষণ প্রদান, কমিউনিটি পর্যায়ে ভয়েস ম্যাসেজ প্রদান, সচেতনতামূলক সভা, ক্যাম্পেইন, শর্তবিহীন ও শর্তযুক্ত নগদ অর্থ প্রদান, রেইন গেজ, সয়েল ময়েস্চোর সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ডিভাইস প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে টেকনিক্যাল সাপোর্ট প্রদান করা হবে। 

বৃহস্প‌তিবার (২৭ জুন) সকা‌ল ১১টায় বাঁশখালী উপজেলা অফিসার্স ক্লাবে আয়োজিত উল্লেখিত প্রকল্পের অবহিতকরণ সভায় বিষয়টি নিশ্চিত করা হয় এবং প্রকল্প বাস্তবায়নের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য সম্পর্কে ধারণা প্রদান এবং কার্যকর প্রন্থা অবলম্বনে স্টেকহোল্ডার/অংশীজনদের মতামত গ্রহণ করা হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন আক্তার। সভায় অংশ নেন উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি আবদুল খালেক পাটোয়ারী, উপজেলা কৃষি অফিসার আবু সালেক, উপ‌জেলা সি‌নিয়র মৎস‌্য কর্মকর্তা মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, উপ‌জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ড. সুপন কুমার নন্দী, সাধনপুর ইউপি চেয়ারম্যান কে এম সালাহ উদ্দিন কামাল, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যাল‌য়ের প্রকৌশলী লিপটন ওম, সিপিপির কর্মকর্তা মিটু কুমার দাশ, সহকারী যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মামুনুর রশীদ, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের প্রতি‌নি‌ধি, কালীপুর রেঞ্জ অফিসার আল আমিন হক প্রমূখ।

উন্নয়ন ও সংবাদকর্মী কল্যাণ বড়ুয়ার সঞ্চালনায়, সভার শুরু‌তে শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন ইপসা র প্রজেক্ট ম্যানেজার সানজিদা আক্তার। এতে প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন সেভ দ্য চিলড্রেন অফিসার আবু তৈয়ব।

এ সময় সভায় প্রধান অতিথি উপজেলা নির্বাহী অ‌ফিসার জেসমিন আক্তার বলেন, ‘বাঁশখালী উপজেলা ঘূর্ণিঝড় ও পাহাড়ধসের জন্য অত্যন্ত দুর্যোগপূর্ণ এলাকা হিসেবে পরিচিত, উপজেলার কয়েক হাজার মানুষ পাহাড়ি এলাকায় ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে বসবাস করছে, স্থানীয় জনগোষ্ঠীসহ নিম্ম আয়ের কিছু মানুষকে প্রশাসন বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা করেও ঝুঁকিপূর্ণ মানুষকে পুরোপুরি সরিয়ে আনতে সক্ষম হচ্ছেনা, পাহাড়কাটা রোধে প্রশাসন সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। অতিবৃষ্টির প্রেক্ষিতে যেকোনো সময় পাহাড়ধসে বড় ধরণের বিপযর্যের সম্ভাবনা তুলে ধরে তিনি প্রশাসনের পাশাপাশি বেসসরকারি প্রতিষ্ঠান গুলোর কার্যকর প্রদক্ষেপ এবং স্থানীয় জনগোষ্ঠীর সচেতনতার উপর গুরুত্বারোপ করেন।

এ সময় তিনি বিগত দিনে ইপসা কর্তৃক গৃহহীনদের ভূমি ও গৃহ নির্মাণ, সেলাই মেশিন, গবাদি পশু বিতরণ সহ বিভিন্ন কার্যক্রমের ভূয়সী প্রশংসা করে ইপসা, সেভ দ্য এবং জিএফএফও বাস্তবায়িত চাইল্ড সেন্টারড এন্টিসিপেটরি একশন ‘র প্রকল্পের কার্যক্রম পাহাড়ি অঞ্চলের ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর সচেতনতায় অত্যন্ত কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ করেন এবং প্রকল্প বাস্তবায়নে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।’