ঢাকা , সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪

রিজার্ভে যোগ হলো আইএমএফের দেওয়া ২ বি‌লিয়ন ডলার

দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে যুক্ত হয়েছে ঋণের ২ দশমিক ০৫ বিলিয়ন ডলার। বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে এ অর্থ যোগ হয়েছে। ফলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মোট রিজার্ভ বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ২ হাজার ৬৫০ কোটি ডলার।

 

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) বিকেলে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র মেজবাউল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

 

 

গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার আইএমএফের ঋণের কিস্তির ১১৫ কোটি ডলার বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভে যোগ হয়েছে। এছাড়া, কোরিয়া, আইডিবিসহ অন্যান্য দেশ থেকে আরও ৯০ কোটি ডলারের ঋণও রিজার্ভে যুক্ত হয়েছে। সব মিলিয়ে রিজার্ভের পরিমাণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ২৬ বিলিয়নের কিছু বেশি।

 

এর আগে, গত সোমবার বাংলাদেশের জন্য ৪৭০ কোটি ডলারের ঋণচুক্তির আওতায় তৃতীয় কিস্তি ছাড়ের অনুমোদন দেয় আইএমএফ।

 

 

এদিকে, গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে আইএমএফের ঋণের প্রথম কিস্তির ৪৭ কোটি ৬৩ লাখ ডলার পেয়েছিল বাংলাদেশ। আর গত ডিসেম্বরে পেয়েছিল দ্বিতীয় কিস্তির ৬৮ কোটি ১০ লাখ ডলার। এখন তৃতীয় কিস্তির অর্থছাড়ের ফলে বাংলাদেশ সব মিলিয়ে তিন কিস্তিতে আইএমএফের কাছ থেকে প্রায় ২৩১ কোটি ডলার পেয়েছে। ঋণের বাকি প্রায় ২৩৯ কোটি ডলার আর চার কিস্তিতে পাওয়া যাবে।

 

বাংলাদেশ ২০২২ সালের জুলাইয়ে আইএমএফের কাছে ঋণের আবেদন করে। ওই আবেদনের ছয় মাস পর গত বছরের ৩০ জানুয়ারি ৩৮টি শর্তে ৪৭০ কোটি ডলারের ঋণ অনুমোদন করে আইএমএফ। বর্ধিত ঋণসহায়তা (ইসিএফ), বর্ধিত তহবিল সহায়তা (ইএফএফ) ও রেজিলিয়েন্স অ্যান্ড সাসটেইনেবিলিটি ফ্যাসিলিটি (আরএসএফ)—এই তিন আলাদা কর্মসূচির আওতায় ৪৭০ কোটি ডলারের ঋণ অনুমোদন করে আইএমএফ।

 

 

ঋণ অনুমোদনের সময় আইএমএফ জানায়, শর্তপূরণ সাপেক্ষে ২০২৬ সাল পর্যন্ত মোট সাত কিস্তিতে ঋণের এ অর্থ দেওয়া হবে। এরই মধ্যে তিনটি কিস্তি পাওয়া গেছে।

 

আপনার মন্তব্য প্রদান করুন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

অন্য ইমেইল

রিজার্ভে যোগ হলো আইএমএফের দেওয়া ২ বি‌লিয়ন ডলার

প্রকাশিত : ০১:০৬:০০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ জুন ২০২৪

দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে যুক্ত হয়েছে ঋণের ২ দশমিক ০৫ বিলিয়ন ডলার। বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে এ অর্থ যোগ হয়েছে। ফলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মোট রিজার্ভ বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ২ হাজার ৬৫০ কোটি ডলার।

 

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) বিকেলে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র মেজবাউল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

 

 

গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার আইএমএফের ঋণের কিস্তির ১১৫ কোটি ডলার বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভে যোগ হয়েছে। এছাড়া, কোরিয়া, আইডিবিসহ অন্যান্য দেশ থেকে আরও ৯০ কোটি ডলারের ঋণও রিজার্ভে যুক্ত হয়েছে। সব মিলিয়ে রিজার্ভের পরিমাণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ২৬ বিলিয়নের কিছু বেশি।

 

এর আগে, গত সোমবার বাংলাদেশের জন্য ৪৭০ কোটি ডলারের ঋণচুক্তির আওতায় তৃতীয় কিস্তি ছাড়ের অনুমোদন দেয় আইএমএফ।

 

 

এদিকে, গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে আইএমএফের ঋণের প্রথম কিস্তির ৪৭ কোটি ৬৩ লাখ ডলার পেয়েছিল বাংলাদেশ। আর গত ডিসেম্বরে পেয়েছিল দ্বিতীয় কিস্তির ৬৮ কোটি ১০ লাখ ডলার। এখন তৃতীয় কিস্তির অর্থছাড়ের ফলে বাংলাদেশ সব মিলিয়ে তিন কিস্তিতে আইএমএফের কাছ থেকে প্রায় ২৩১ কোটি ডলার পেয়েছে। ঋণের বাকি প্রায় ২৩৯ কোটি ডলার আর চার কিস্তিতে পাওয়া যাবে।

 

বাংলাদেশ ২০২২ সালের জুলাইয়ে আইএমএফের কাছে ঋণের আবেদন করে। ওই আবেদনের ছয় মাস পর গত বছরের ৩০ জানুয়ারি ৩৮টি শর্তে ৪৭০ কোটি ডলারের ঋণ অনুমোদন করে আইএমএফ। বর্ধিত ঋণসহায়তা (ইসিএফ), বর্ধিত তহবিল সহায়তা (ইএফএফ) ও রেজিলিয়েন্স অ্যান্ড সাসটেইনেবিলিটি ফ্যাসিলিটি (আরএসএফ)—এই তিন আলাদা কর্মসূচির আওতায় ৪৭০ কোটি ডলারের ঋণ অনুমোদন করে আইএমএফ।

 

 

ঋণ অনুমোদনের সময় আইএমএফ জানায়, শর্তপূরণ সাপেক্ষে ২০২৬ সাল পর্যন্ত মোট সাত কিস্তিতে ঋণের এ অর্থ দেওয়া হবে। এরই মধ্যে তিনটি কিস্তি পাওয়া গেছে।